মো: মোমিন মিয়া (বালাগঞ্জ প্রতিনিধি)

মো: গোলাম রব্বানীর

বালাগঞ্জ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী মো: রব্বানী আনুষ্টানিক ভাবে প্রার্থীতা ঘোষণা করেছেন। গতকাল শুক্রবার বিকেলে উপজেলার নূরপুরস্থ (ইসলামপুর) গ্রামে মো: গোলাম রব্বানীর বাস ভবনে উপজেলায় কর্মরত সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময়কালে তিনি (সতন্ত্র) প্রার্থীতা ঘোষণা করেন। এসময় বালাগঞ্জের সাংবাদিকদের কল্যাণে একটি কল্যান ট্রাস্ট গঠনের ঘোষণা দিয়ে মো: গোলাম রব্বানী বলেন, আমরা সাংবাদিকদের কর্মের যথাযথ মূল্যায়ন করতে পারিনা, এটা আমাদের ব্যর্থতা। দির্ঘদিন থেকে সাংবাদিকদের কল্যাণে কিছু করার জন্য আমার মনোবাসনা রয়েছে। দির্ঘদিন ধরে সাংবাদিকদের জন্য একটি কল্যাণ ট্রাস্ট গঠনের পরিকল্পনা আমার রয়েছে। কল্যাণ ট্রাস্ট গঠন হলে সাংবাদিকরা কিছুটা হলেও উপকৃত হবেন।

মতবিনিময়কালে সাংবাদিকদের কাছে উপস্থাপন করা লিখিত বক্তব্যে মো: গোলাম রব্বানী বলেন, আমি অত্রাঞ্চলের মাটি ও মানুষের কল্যাণে কাজ করে যাচ্ছি। সেই লক্ষ্যে নির্বাচন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। আমি বাংলাদেশর বৃহৎ একটি রাজনৈতিক দলের সাথে সম্পৃক্ত রয়েছি। দলের তৃণমূল নেতৃবৃন্দ এবং সম্মানিত ভোটার ও সাধারণ মানুষের সমর্থন নিয়ে আমি নির্বাচনে প্রার্থী হয়েছি। আমি বিগত দিনে দলীয় বিভিন্ন আন্দোলন সংগ্রামে দুঃসময়ে নেতৃবৃন্দের পাশে থেকেছি। আমি প্রবাসে অবস্থান করলেও দেশের রাজনীতি ও এলাকার সামাজিক কার্য্যক্রমের সাথে ওতপ্রোতভাবে সম্পৃক্ত রয়েছি। এলাকার উন্নয়ন ও ধর্মীয় প্রতিষ্টানের উন্নয়নসহ সেবামূলক কাজ করেছি। আমি খাদিম হয়ে সাধারণ মানুষের খেদমত করতে এসেছি। আমার লক্ষ্য উদ্দেশ্য হল- সব কিছুর ঊর্ধ্বে থেকে সাধারণ মানুষের কল্যাণে কাজ করা। বিগত দিনের নির্বাচনগুলোতে দলীয় স্বার্থে প্রার্থীদের জন্য আমার অবস্থান থেকে সাধ্যমত শ্রম দেয়ার চেষ্টা করেছি।

আমি আশাবাদি সম্মানিত ভোটারগণ আমাকে মূল্যায়ন করবেন। বালাগঞ্জের অবকাঠামোগত উন্নয়নের দিকে নজর দেয়ার কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমি নির্বাচিত হলে সরকারীভাবে আবাসিক খাতে গ্যাস সংযোগের অনুমতি পেলেই বালাগঞ্জ উপজেলায় অগ্রাধিকার ভিত্তিতে গ্যাস সংযোগের আওতায় নিয়ে আসা হবে। যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়নে অগ্রাধিকার দেয়া হবে। ব্রিজ, কালভার্ট নির্মাণসহ গ্রামীণ সড়কগুলো পাকাকরণের আওতায় নিয়ে আসা হবে। নিরাপদ সড়কের নিশ্চয়তা বাস্তবায়ন করা হবে। প্রত্যেক মানুষের স্বাস্থ্য সেবা পাওয়া তার নাগরিক অধিকার রয়েছে। স্বাস্থ্য সেবার মান উন্নয়নে আমার চেষ্টা অব্যাহত থাকবে। কুশিয়ারা নদীর ভাঙন প্রতিরোধ, কৃষি উন্নয়ন, সরকারি ভাবে পর্যটন এলাকা ঘোষনা করতে অগ্রণী ভুমিকা পালন করব।

পর্যটন কেন্দ্র স্থাপন করে বালাগঞ্জকে পর্যটন নগরী হিসেবে গড়ে তোলা হবে। বালাগঞ্জ উপজেলা পরিষদ থেকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স পর্যন্ত কুশিয়ারা নদীর সংরক্ষণ করে ‘ওয়াক ওয়ে’ নির্মাণের বিষয়েই সাধ্যনুযায়ী কাজ করবো। পর্যটন কেন্দ্র স্থাপনসহ উন্নয়নমূলক কাজে সরকারি ও বেসরকারি বিনিয়োগ বৃদ্ধিতে দেশি-বিদেশী উদ্যোক্তাদের আকৃষ্ট করা হবে।

এই উপজেলায় জিজিটাল প্রযুক্তির অধিকতর ব্যবস্থা নিশ্চিত করা হবে। এই এলাকার হাওর-বিলের উন্নয়নে পরিকল্পনা গ্রহণ ও সরকারি ভাবে হাওরাঞ্চল হিসেবে ঘোষণার ব্যবস্থা করা হবে। বালাগঞ্জ উপজেলায় দক্ষ জনশক্তি সৃষ্টির লক্ষ্যে দেশি-বিদেশী উদ্যোক্তাদের সহযোগীতা এবং সরকারি ও বেসরকারি উদ্যোগে কারিগরি শিক্ষা প্রতিষ্টান নির্মাণের চেষ্টা করা হবে। শীতল পাটির দেশ বালাগঞ্জে পাটির শিল্পের হারানো ঐতিহ্য ফিরিয়ে আনার কথা ব্যক্ত করে তিনি বলেন, বালাগঞ্জ উপজেলায় ক্ষুদ্র কুঠির শিল্প স্থাপন ও মুর্তা চাষিদের সরকারি ভাবে প্রনোদনা দিয়ে জামদানি নগরীর ন্যায় শীতল পাটির নগরী হিসেবে গড়ে তোলা হবে।

সার্বিক বিষয়ে প্রশাসনকে জনবান্ধব করতে কার্যকর ব্যবস্থা নেয়া হবে। সন্ত্রাস, সাম্প্রদায়িকতা, জঙ্গিবাদ ও মাদক মুক্ত উপজেলা ঘোষণা করে এর সঠিক বাস্তবায়নের লক্ষ্যে কাজ করা হবে। সরকারি উন্নয়নমূলক প্রকল্প বাস্তবায়নে ও অন্যান্য সকল ক্ষেত্রে দুর্নীতি মুক্ত করার চেষ্টা করা হবে। এলাকার হত দরিদ্র জনগোষ্টির জীবন মান উন্নয়নে দারিদ্র বিমোচনের লক্ষ্যে বিভিন্ন উন্নয়নমূলক প্রকল্প গ্রহণ করা হবে। সকল শিক্ষা প্রতিষ্টানে শিক্ষার মান বৃদ্ধিতে কার্যকর প্রদক্ষেপ নেয়া হবে।

উপজেলায় শত ভাগ শিক্ষার হার নিশ্চিত করা হবে। তিনি বালাগঞ্জ উপজেলাকে একটি স্বনির্ভর ও মডেল উপজেলা হিসেবে গড়ে তোলার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন। মতবিনিময়কালে সাংবাদিকদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, শামীম আহমদ, শাহাব উদ্দিন শাহীন, রজত দাস ভুলন, এমএ কাদির, জিল্লুর রহমান জিলু, মোঃ আব্দুস শহিদ, আবুল হোসেন ইমন, হোসাইন আহমদ ও আবুল কাশেম অফিক প্রমুখ।

সংবাদটি সম্পর্কে মন্তব্য করুনঃ

Facebook comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

You may use these HTML tags and attributes: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <s> <strike> <strong>