নোয়াখালী প্রতিনিধি:

নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জের চরএলাহী ইউনিয়নে এক ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে বেয়াইকে ডেকে এনে আটক রেখে মারধর করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ সময় জোরপূর্বক বেয়াইয়ের ঘর-ভিটিসহ ২০ শতাংশ সম্পত্তি স্ট্যাম্পের মাধ্যমে লিখে নেয়া হয়। গতকাল রোববার স্থানীয় ইউনিয়ন আ.লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের সহযোগিতায় দিনভর তাদের আটক রেখে ইউপি সদস্য এ কাণ্ড ঘটিয়েছে।

বর্তমানে মারধরের শিকার গোলাম কিবরিয়া, তার স্ত্রী পেয়ারা খাতুন ও ছেলে মো. জুয়েল নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।
ভুক্তভোগী গোলাম কিবরিয়া জানান, গত এক থেকে দেড় মাস পূর্বে তার ছোট ছেলের সঙ্গে স্থানীয় চার নম্বর ওয়ার্ডের মেম্বারের মেয়ের বিয়ে হয়। হঠাৎ গতকাল রোববার মেম্বার ফোনে তাদের বাড়িতে ডেকে নিয়ে বলে তার ছেলে নাকি আরও একটা বিয়ে করেছে।

এ কথায় কিবরিয়া প্রতিবাদ করলে মেম্বার ও তার ছেলেসহ তাকে বেদম মারধর করে। একপর্যায়ে কিবরিয়ার বড় ছেলে তার স্ত্রীকেও মারধর করে এবং বাড়িতে আটক করে রাখে। পরে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি শাহাব উদ্দিন ও সাধারণ সম্পাদক আব্দুল গণিকে ডেকে এনে পুনরায় মারধর করে এবং জোরপূর্বক স্ট্যাম্পে কিবরিয়ার বসত-ভিটিসহ ২০ শতাংশ জমি আমমোক্তারের মাধ্যমে লিখে নেয়।

ভুক্তভোগী পরিবার চিকিৎসা নেওয়ার চেষ্টা করলে তাদেরকে স্থানীয় বাদামতলী এলাকায় নিয়ে আটক করে রাখে। খবর পেয়ে গণমাধ্যম কর্মীরা মেম্বার ও আওয়ামী লীগ নেতাদের ফোন দিলে পরে তাদের ছেড়ে দেওয়া হয়।

এ বিষয়ে কোম্পানীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আরিফুর রহমান জানান, এ ঘটনায় ভুক্তভোগীকে থানায় লিখিত অভিযোগ দিতে বলা হয়েছে। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

সংবাদটি সম্পর্কে মন্তব্য করুনঃ

Facebook comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

You may use these HTML tags and attributes: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <s> <strike> <strong>