ওসমানীনগর (সিলেট) থেকে নিজস্ব সংবাদদাতা:

ওসমানীনগরে এক অন্ত:সত্ত্বা গৃহবধূর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে থানা পুলিশ। মায়া বেগম (২৭) নামের ওই গৃহবধূ উপজেলার তাজপুর ইউনিয়নের কাদিপুর গ্রামের সজ্জাদ মিয়া’র স্ত্রী ও সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার জয়দা গ্রামের আনা মিয়া কন্যা।

এদিকে, সজ্জাদ মিয়ার পরিবার এ মৃত্যুকে আত্মহত্যা বললেও মায়া বেগমের পরিবার এটাকে পরিকল্পিত হত্যাকান্ড বলে দাবী করছে। পুলিশ এ অভিযোগে স্বামী সজ্জাদ মিয়াকে আটক করেছে।

জানা যায়, সোমবার দিবাগত রাত ১২টার পরে মায়া বেগমের স্বামী সজ্জাদ মিয়া পাশের বাড়িতে এসে শয়ন কক্ষের ঘরের দরজা ভিতর থেকে বন্ধ পেয়ে দরজা খোলার জন্য ডাকাডাকি করেন। এ সময় স্ত্রী মায়া বেগম দরজা না খোলায় তিনি অন্য কক্ষে ঘুমিয়ে পড়েন।

সকাল ৬টায়ও স্ত্রী যখন দরজা খোলেননি তখন তারা ঘরের অন্য কক্ষের সাথে সংযুক্ত দরজা খোলার চেষ্টা করলে এক পর্যায়ে দরজার ভেতরে লাগানো ছিটকিনি খোলে যায়। তখন বাড়ির লোকজন দেখতে পান গৃহবধূ মায়া বেগম ফ্যানের সাথে ঝুলে রয়েছেন। তখন বিষয়টি স্থানীয় ইউপি সদস্য ও পুলিশকে জানানো হয়। খবর পেয়ে থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের উপস্থিতিতে লাশ ঝুলন্ত অবস্থা থেকে নামিয়ে সুরতহাল প্রতিবেদন তৈরি করে এবং ময়না তদন্তের জন্য সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠায়।

গৃহবধূর পিতা আনা মিয়া জানান, আমার মেয়েকে তারা হত্যা করে ফ্যানের সাথে ঝুলিয়ে রেখেছে। ফ্যানের একটি ডানার সাথে মাটিতে হাটুগালা দিয়ে ঝুলে একজন মানুষ আত্মহত্যা করতে পারেনা। তার লাশ মাটির সাথে হাটুগালা অবস্থায় ছিলো। আমি এ হত্যাকান্ডের বিচার চাই।

ওসমানীনগর থানার অফিসার্স ইনচার্জ মোহাম্মদ রাশেদ মোবারক বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, লাশ ময়না তদন্তের জন্য সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ মর্গে পাঠানো হয়েছে। গৃহবধূর পিতার অভিযোগে তার স্বামীকে আটক করা হয়েছে।

সংবাদটি সম্পর্কে মন্তব্য করুনঃ

Facebook comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

You may use these HTML tags and attributes: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <s> <strike> <strong>