বিনোদন ডেস্ক:
সোমবার রাতে (৪ নভেম্বর) জনপ্রিয় অভিনেত্রী রাফিয়াত রশিদ মিথিলা ও নির্মাতা ইফতেখার আহমেদ ফাহমির অন্তরঙ্গ মুহূর্তের কিছু ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়।

ভাইরাল হওয়ার পর থেকেই এ নিয়ে চলছে নানা আলোচনাসমালোচনা। এবার মিথিলা-ফাহমির অন্তরঙ্গ এই ছবি নিয়ে মুখ খুললেন আরেক অভিনেত্রী সাদিয়া জাহান প্রভা।

নিজের ফেসবুক একাউন্টে এক পোস্টের মাধ্যমে প্রভা লিখেন, ‘কারো ব্যক্তিগত মুহূর্তের ছবি শেয়ার বা পোস্ট করা, এথিকালি কোন রাইট আপনি রাখেন না; বিকৃত মানসিকতার আমূল পরিবর্তন হোকৃ.’।

হাজার দেড়েক মানুষ তাতে রিয়েকশন

দেয়ার পর অবশ্য নিজের পোস্টটি তিনি সরিয়ে ফেলেনশুধু প্রভা নন, আরও সাধারণ ফেসবুক ব্যবহারকারীদের অনেকেই মনে করছেন

কারো ব্যক্তিগত মুহূর্তের ছবি বা ভিডিও অনুমতি ছাড়া প্রকাশ করা আইনগত দণ্ডনীয়।

এসব ছবি নিয়ে যারা অতি মাত্রায় আগ্রহ প্রকাশ করছেন তাদেরও সমালোচনা হচ্ছে সামাজিক মাধ্যমে।নিষেধাজ্ঞার কারণে সাকিব বাইরে।

দলের সঙ্গে নেই তামিমও। বিভিন্ন দাবি দাওয়াতে আন্দোলনের ইস্যুতে কালো মেঘ জমে ছিল বাংলাদেশের ক্রিকেটকে ঘিরে।

দিল্লির মাটিতে ভারতকে হারানো এই ম্যাচ যেন টনিক। তরুণরা নিজেদের সামর্থ্য

দেখিয়েছে। এমনটা মনে করেন ক্রিকেট বিশ্লেষকরা।সিনিয়র ক্রীড়া সাংবাদিক পবিত্র কুণ্ডু বলেন, গেল দুই সপ্তাহ বাংলাদেশের ক্রিকেটর ওপর দিয়ে অনেক ঝড় বয়ে গেছে।

এমন সময়ের মধ্যে আমরা জয় পেলাম। যেই ভারতের বিপক্ষে আমরা জয়ের স্বাদ প্রায় ভুলেই গিয়েছিলাম সেই ভারতের বিপক্ষেই জয় পেলাম।

পবিত্র কুণ্ডু বলেন, তরুণরা অনেক ভালো করেছে। এটা অব্যাহত রাখতে পারলে ভালো কিছু করা সম্ভব।

আইসিসির আন্তর্জাতিক ম্যাচ রেফারি নিয়ামুর রশিদ রাহুল বলেন, আমরা সিরিজটা জিততে পারলে ইতিহাস হবে।

কেবলই একটি জয় হয়তো। তবে তরুণরা দেখিয়েছেন, সাকিব-তামিমের উত্তরসূরি আছেন।

অন্তত কারো ওপর নির্ভরশীল তো নয় দলটা! তারুণ্যের জয়গানে মুখর বাংলাদেশ শিবির।একজন আছেন নির্ভরতার প্রতীক হয়ে।

এর আগে অনেকবারই তীরের সন্ধান দিতে চেয়েছিলেন, কখনো পেরেছেন, কখনো পারেননি।

ভারতের বিপক্ষে না পারার আক্ষেপ সঙ্গী হয়েছে বারবার। মুশফিকুর রহিম সব দূরে ঠেলে এবার ওড়ালেন বিজয়ের কেতন।

ভারতের মাটিতে প্রথমবারের মতো পূর্ণাঙ্গ সিরিজ খেলতে যাওয়া টাইগাররা, সিরিজটাও জিতে নিতে পারবে।

যদি আত্মবিশ্বাস ধরে রাখে, যদি নিজেদের সামর্থ্যের যথাযথ ব্যবহার করে। এমনটাই মত বিশ্লেষকদের।

সংবাদটি সম্পর্কে মন্তব্য করুনঃ

Facebook comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

You may use these HTML tags and attributes: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <s> <strike> <strong>