অনলাইন ডেস্ক:
আঞ্চলিক ও বৈশ্বিক নিরাপত্তার স্বার্থে নির্যাতনের মুখে বাংলাদেশে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের বিষয়ে বিশ্ববাসীর মনোযোগী হওয়ার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর।
মিয়ানমারের বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গারা শুধু বাংলাদেশ নয়, আঞ্চলিক নিরাপত্তার হুমকি উল্লেখ করে, এ সমস্যা সমাধানে বিশ্ব সম্প্রদায়কে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আঞ্চলিক ও বৈশ্বিক নিরাপত্তার স্বার্থে, মিয়ানমারের বাস্তুচ্যূত রোহিঙ্গাদের বিষয়ে বিশ্ববাসীকে মনোযোগী হওয়ার আহ্বান জানান সরকার প্রধান। আজ সোমবার রাজধানীর ইন্টারকন্টিনেন্টালে ‘ঢাকা গ্লোবাল ডায়ালগ-২০১৯’ এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির ভাষণে এসব কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এশিয়া ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের দেশগুলোর আর্থ সামাজিক উন্নয়ন এবং নিরাপত্তা ও শান্তি বজায় রাখার লক্ষ্যে ‘বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অন ইন্টারন্যাশনাল অ্যান্ড স্ট্র্যাটেজিক স্টাডিজ (বিস) এবং ভারতের অবজারভার রিসার্চ ফাউন্ডেশন (ওআরএফ) যৌথভাবে তিনদিনের এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে।

ঢাকা গ্লোবাল ডায়ালগের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘এই অঞ্চলের নিরাপত্তা রক্ষা করতে হলে আমি মনে করি এ রোহিঙ্গা সমস্যার দ্রুত সমাধান হওয়া প্রয়োজন। বিশ্ব সম্প্রদায়কে বিষয়টা অনুধাবন করে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়ার অনুরোধ জানাচ্ছি।’ আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন, নিরাপত্তা এবং শান্তি শৃঙ্খলা বজায় রাখতে এশিয়া-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের দেশগুলোর একসঙ্গে কাজ করার ওপর গুরুত্বারোপ করেন শেখ হাসিনা।

তিনি বলেন, ‘একসঙ্গে কাজ করতে পারলে আমরা অবশ্যই দারিদ্রতাকে জয় করতে পারব। তাই আমাদের একসঙ্গে কাজ করা দরকার। যেন আমরা এই অঞ্চলের মানুষের উন্নয়ন এবং অগ্রগতি নিশ্চিত করতে পারি।’ প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী, বাংলাদেশের অর্থনীতিতে সমুদ্রের ভূমিকার কথাও উল্লেখ করেন শেখ হাসিনা।

এ সময়, দুর্যোগ মোকাবিলায় নিজস্ব অর্থায়নে টেকসই পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করা হচ্ছে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

‘ঢাকা গ্লোবাল ডায়ালগ ২০১৯’ এ যুক্তরাষ্ট্র, চীন ও মিয়ানমারসহ বিশ্বের ৪৫টি দেশের প্রায় দেড়শ’ প্রতিনিধি অংশ নেন। যারা বিভিন্ন ডায়ালগে প্রবৃদ্ধি, জলবায়ু, নিরাপত্তা, ব্লু-ইকনোমি ও সাইবার নিরাপত্তাসহ বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা করবেন। সংলাপের উদ্বোধন করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘জলবায়ু পরিবর্তনে ভূমিকা না থাকলেও এর প্রভাবে বাংলাদেশ এখন ঝুকিপূর্ণ।’ তবে এও জানান, যে কোনো দুর্যোগ মোকাবিলায় বাংলাদেশ এখন সচেতন।

সংবাদটি সম্পর্কে মন্তব্য করুনঃ

Facebook comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

You may use these HTML tags and attributes: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <s> <strike> <strong>