বায়ান্ন ডেস্ক :: করোনাভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে টিকা নেয়ার অপেক্ষায় রয়েছেন সিলেটের ১ লাখ ৯২ হাজার ১৫৯ জন শিক্ষার্থী। ১২ থেকে ১৭ বছর বয়সী স্কুলগামী এসব শিশুদের তথ্য ইতোমধ্যে শিক্ষা মন্ত্রনালয়ে প্রেরণ করেছে জেলা শিক্ষা অফিস। এসব শিক্ষার্থীদের ফাইজারের টিকা দেয়া হবে।

তবে এখনই সিলেটের শিক্ষার্থীদের টিকা দেয়ার ব্যাপারে কোন সিদ্ধান্ত হয়নি বলে জানান সিলেটের বিভাগীয় পরিচালক (স্বাস্থ্য) ডা. হিমাংশু লাল রায়।

তিনি বলেন, আগামীকাল সোমবার বিভিন্ন জায়গায় শিক্ষার্থীদের টিকা দেয়া শুরু হলেও সিলেটের ব্যাপারে এখনও কোন সিদ্ধান্ত আমাদের জানানো হয়নি। তবে আমরা আশাকরছি খুব শিগগিরই সিলেটেও টিকা দেয়া শুরু হতে পারে।

এদিকে, জেলা শিক্ষা অফিস জানায়, সিলেট জেলা ও মহানগরের ১ লাখ ৯২ হাজার ১৫৯ জন শিক্ষার্থীর তথ্য শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে প্রেরণ করা হয়েছে। এসব শিক্ষার্থীদের বয়স ১২ থেকে ১৭ বছরের মধ্যে। তথ্য প্রেরণকৃত শিক্ষার্থীদের মধ্যে ২৯ হাজার ২৯০ জন মাদ্রাসার আর ১ লাখ ৬২ হাজার ৮৬৯ স্কুলের শিক্ষার্থী।

সিলেট জেলা শিক্ষা অফিসার এ এসএম আবদুল ওয়াদুদ বলেন, আমরা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে তথ্য সংগ্রহ করে মন্ত্রণালয়ে প্রেরণ করেছি। এখন শিক্ষা মন্ত্রণালয় যেভাবে নির্দেশনা দেবে আমরা সেভাবে কাজ করবো। তথ্য প্রেরণ একটি চলমান প্রক্রিয়া। আমরা পর্যায়ক্রমে অন্যান্য শিক্ষার্থীদের তথ্য সংগ্রহ করে প্রেরণ করবো।

প্রসঙ্গত, আগামীকাল সোমবার (১ নভেম্বর) থেকে করোনাভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে ১২ থেকে ১৭ বছর বয়সী স্কুলগামী শিশুদের ফাইজারের টিকা দেওয়া শুরু হচ্ছে। প্রথম দফায় রাজধানীর ১২টি কেন্দ্রে এবং ঢাকার বাইরের ২১টি কেন্দ্রে এ টিকাদান কার্যক্রম শুরু হবে।

রোববার (৩১ অক্টোবর) সকালে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. এবিএম খুরশীদ আলম।

তিনি জানান, ১ নভেম্বর থেকেই (কাল) স্কুল শিক্ষার্থীদের টিকা প্রয়োগ শুরু হবে। এ লক্ষ্যে আমাদের সব প্রস্তুতি শেষ হয়েছে। বর্তমানে ৭০ লাখ ফাইজারে টিকা রয়েছে। যা দিয়ে ৩০ লাখ শিক্ষার্থীকে টিকা দেওয়া হবে। আগামী নভেম্বরে আরও ৩৫ লাখ ডোজ ফাইজারের টিকা দেশে আসবে।

খুরশীদ আলম বলেন, ফাইজারের টিকা দেওয়ার জন্য শীতাতপ নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা থাকতে হয়। এজন্য দেশের সব জেলাতেই ক্রমান্বয়ে প্রয়োজন মতো শীতাতপ ব্যবস্থা ঠিক করে দেশব্যাপী ১২ থেকে ১৭ বছর বয়সী শিশুদের টিকা দেওয়ার কাজ শুরু করা হবে।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, বর্তমানে ৭০ লাখ ফাইজারে টিকা রয়েছে। যা দিয়ে ৩০ লাখ শিক্ষার্থীকে টিকা দেওয়া হবে। আগামী নভেম্বরে আরও ৩৫ লাখ ডোজ ফাইজারের টিকা দেশে আসবে। এদিকে, শিক্ষা মন্ত্রণালয় বলছে ১২ থেকে ১৭ বছর বয়সী প্রায় এক কোটির শিক্ষার্থী রয়েছে।

সংবাদটি সম্পর্কে মন্তব্য করুনঃ

Facebook comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

You may use these HTML tags and attributes: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <s> <strike> <strong>